sliderবিনোদনশিরোনাম

হিরো আলমের সেই গাড়ি অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তর হচ্ছে বিনামূল্যে

পতাকা ডেস্ক : হবিগঞ্জ থেকে উপহার হিসেবে পাওয়া হিরো আলমের সেই গাড়িটি অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তরের কাজ চলমান রয়েছে। গাড়িটি এখন আছে ডিজাইন বিল্ড রিপিয়ার (ডিবিআর) কমপ্লিট অটো সেন্টার নামের একটি ওয়ার্কশপে। সেখানে প্রয়োজনীয় যন্ত্রংশ পরিবর্তন সংযোজন করে গাড়িটিকে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তর করা হবে।

মঙ্গলবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বিয়ষটি নিশ্চিত করেন হিরো আলম নিজেই। তিনি বলেন, গাড়িটি এখন বগুড়ায় ওয়ার্কশপে আছে। আমি সেখানেই যাচ্ছি। আশা করছি শিগগিরই গাড়িটি মানুষের সেবায় রাস্তায় নামবে।

তিনি আরো বলেন, আনন্দের বিষয় যে, ওয়ার্কশপের মালিকরা আমাকে সহযোগিতা করছেন। তবে ট্যাক্সের টাকার বিষয়ে এখনো বিআরটিএতে যোগাযোগ করা হয়নি। যোগাযোগ করে কিছু টাকা কমানোর জন্য অনুরোধ করব।

এর আগে গত ৭ ফেব্রুয়ারি হিরো আলমকে উপহার হিসেবে টয়োটা নোয়া ১৯৯৮ মডেলের গাড়িটি দেন হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাটের নরপতি গ্রামের শিক্ষক মুখলিছুর রহমান। গাড়িটি পাওয়ার পর পরই সেটিকে অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তরের ঘোষণা দেন হিরো আলম। তিনি গাড়িটি নিয়ে আসার পর জানতে পারেন, এটির ট্যাক্স দেওয়া হয়েছে সর্বশেষ ২০১৩ সালের ১৮ মার্চ। ওই বছরের ১৫ জুলাই গাড়ির ফিটনেসের মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে। বর্তমানে গাড়িটির ১০ বছরে চার লাখ ৩৯ হাজার ৪৪৩ টাকা সরকারি ফি বকেয়া।

ডিবিআর অটো সেন্টারের ম্যানেজার মিজানুর রহমান বলেন, গাড়িটি দু’দিন আগে (১২ ফেব্রুয়ারি) তাদের অটো সেন্টারে আনা হয়। হিরো আলম যখন গাড়িটিকে জনগণের জন্য অ্যাম্বুলেন্স বানানোর কথা জানান, তখনই গাড়িটি আমাদের ওয়ার্কশপে মেরামত করার পরিকল্পনা করা হয়। এরপর মোবাইল ফোনে হিরো আলমকে বিষয়টি জানাই। তিনিও অনেক খুশি হয়ে আমাদের প্রস্তাব মেনে নেন। গাড়িটি এখন আমাদের ওয়ার্কশপে আছে। গাড়িটি অ্যাম্বুলেন্সে রূপান্তর করতে ২০ দিনের মতো সময় লাগবে।

তিনি বলেন, গাড়িটি মেরামত করতে কমপক্ষে আড়াই থেকে তিন লাখ টাকার প্রয়োজন হবে। এই টাকা আমরাই দেব। এতে আমারও জনহিতকর কাজে অবদান রাখা হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button