sliderবিনোদনশিরোনাম

রাঙ্গামাটির পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু এখনো পানির নিচে

সাম্প্রতিক প্রবল বর্ষণে পাহাড়ের সীমান্ত থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদের পানির উচ্চতা বেড়ে রাঙ্গামাটি পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু এখনো পানিতে তলিয়ে আছে। ফলে এবারের কোরবানি ঈদের বন্ধে রাঙ্গামাটিতে আগত পর্যটকরা ঝুলন্ত সেতু পারাপারে করতে পারবেন না। পর্যটন কর্তৃপক্ষ রাঙ্গামাটিতে আসা পর্যটকদের চলাচল নিরাপদ রাখতে এবং ঝুলন্ত সেতুর ঝুঁকি এড়াতে সেতুর উপর দিয়ে পারাপারের পথ বন্ধ করে দিয়েছে।
রাঙ্গামাটি সরকারি পর্যটন কমপ্লেক্সের ব্যবস্থাপক আলোক বিকাশ চাকমা জানান, হ্রদের পানির উচ্চতা বেড়ে যাওয়ায় ঝুলন্ত সেতুর পাটাতান পানির নিচে তলিয়ে আছে। সম্পূর্ণ সেতু বর্তমানে পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় সেতুতে পর্যটকদের চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। তবে সেতুর সামনের প্রান্ত থেকে পর্যটকরা যাতে কাপ্তাই হ্রদে ভ্রমণ করতে পারে সে ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।
তিনি জানান, ১৩ জুনের পাহাড় ধ্বসের ঘটনার পর রাঙ্গামাটি চট্টগ্রাম সড়ক ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় এবং বর্ষায় পর্যটনের ঝুলন্ত সেতু পানিতে ডুবে থাকায় রাঙ্গামাটিতে পর্যককদের আগমন অন্যান্য যেকোনো বারের চেয়ে কমে গেছে।
তিনি জানান, বর্তমানে পর্যটকদের বুকিং তেমন নেই। তবে পানি সরে গেলে ঝুলন্ত সেতু খুলে দেয়া হবে।
এদিকে রাঙ্গামাটিতে বেড়াতে আসা অনেক পর্যটক আকর্ষণীয় ঝুলন্ত সেতুতে পারাপার করতে না পেরে হতাশ ফিরে যাচ্ছেন। কারণ এ ঝুলন্ত সেতুর পূর্বের দিকে তাকালে দেখা মিলে কাপ্তাই হ্রদের অপূর্ব স্বচ্ছ জলরাশিসহ ছোটবড় নৈসর্গিক সবুজ পাহাড়। ১৯৮৪ সালের দিকে পর্যটন কর্পোরেশন পর্যটকদের বিনোদনের জন্য দুই পাহাড়ের মধ্যে তৈরি করা হয় আকর্ষণীয় ঝুলন্ত সেতু।
অপরদিকে পর্যটকদের আগমান না থাকায় রাঙ্গামাটিতে উপজাতীয়দের বস্ত্র ও হস্তশিল্প মারাত্মক সংকটে পড়েছে। উপজাতীয় বস্ত্রের মার্কেটগুলো ক্রেতা শূন্য হয়ে থাকায় ব্যবসায় চরম মন্দা বিরাজ করছে।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button