sliderস্থানীয়

রসিক নির্বাচনে ইভিএম জটিলতায় ভোটারদের দীর্ঘ লাইন

আব্দুর রহমান রাসেল,রংপুর ব্যুরোঃ রংপুর সিটি করপোরেশনে ভোট উৎসব শুরু হয়েছে। তবে সকাল থেকেই নারী ভোটারদের উপস্থিতি অনেক বেশী। সকাল থেকে নিজেদের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে জয়ী করতে শীতকে উপেক্ষা করে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়িয়ে নারী ভোটাররা। ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে সকাল সাড়ে আটটা থেকে বিরতিহীনভাবে চলবে বিকেল সাড়ে চারটা পর্যন্ত।
বুধবার (২৭ ডিসেম্বর) সকাল ৯ টার দিকে রসিক ৩২ নং ওয়ার্ডের মডেল কলেজ, ধর্মদাস সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে গিয়ে দেখা যায় ইভিএমে ভোট দিতে দীর্ঘ লাইনে অপেক্ষা করছেন ভোটাররা।
রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে জাতীয় পার্টির মেয়র পদপ্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা ইভিএম ও নির্বাচনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন বলে মন্তব্য করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন। 
আজ মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় লায়ন্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ ভোটকেন্দ্র পরিদর্শনে এসে এ কথা বলেন তিনি। 
ইভিএমের ত্রুটির কারণে প্রথম দফায় ভোট দিতে পারিনি’—জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফার এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেন বলেন, ‘তাঁর এমন অভিযোগ জানার পর প্রিসাইডিং কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছি। সেখানে ইভিএমের কোনো ত্রুটি ছিল না। একজন ভোটার ভোট দিচ্ছিলেন। তাঁকে একটু অপেক্ষা করতে বলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি তা না করে ইভিএম ও নির্বাচনকে বিতর্কিত করার চেষ্টা করছেন।’ 
ভোটকে সুষ্ঠু করতে কেন্দ্রে পুলিশ বিজিবি ও আনছার সদস্যরা রয়েছে সচেষ্ট। কেন্দ্রের বাহিরে প্রার্থীদের কর্মী সমর্থকদেরও যেন উৎসবের কমতি নেই। এই নির্বাচনকে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে মাঠে রয়েছেন ১১ প্লাটুন বিজিবাসহ প্রায় ৭ হাজার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। 
এদিকে, ভোট দিতে এসে ইভিএম জটিলতায় পড়েছেন জাতীয় পার্টি মনোনীত লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। কিছুক্ষন পর মেশিন সচল হওয়ায় ভোট দেন তিনি। 
সকাল ৯ টায় আলমনগর কলেজ রোড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিতে যান।সেখানে ইভিএম জটিলতায় প্রথমে ভোট দিতে পারেননি তিনি। কিছুক্ষন পরে ভোট দিয়ে এসে সাংবাদিকদের ইভিএম নিয়ে ক্ষোভ জানান।
এ সময় তিনি বলেন, ভোট দিতে এসে আমি নিজেই ভোট দিতে বিড়ম্বনায় পারলাম। এভাবে ত্রুটি থাকলে ভোটগ্রহণ বিলম্ব হবে। এরকম হলে ভোট প্রশ্নবিদ্ধ হবে। আমরা নির্বাচন কমিশনকে আগে থেকেই ইভিএম চেক করতে বারবার তাগিদ দিয়েছি কিন্ত আজ এইযে ত্রুটিগুলো সামনে আসছে।
মোস্তফা আরও বলেন, অবস্থা যদি এই হয়, তাহলে মানুষ ভোট দেবে কীভাবে? আমি ভোট দিতে এসে বিড়ম্বনায় পরার বিষয়টি এখানকার প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আসাদুজ্জামানকে অবগত করেছি এবং সেই সঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তা আব্দুল বাতেনকেও কিছুক্ষণের মধ্যেই বিষয়টি অবগত করব।
তিনি ভোটকেন্দ্রের পরিবেশ নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ভোটাররা এসে বিভ্রান্ত হচ্ছে। কে কোন কক্ষে গিয়ে ভোট দেবে সেটা বোঝা মুশকিল। কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের অবহেলার কারণে এই পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। আমরা চাই সবাই সুন্দর সুষ্ঠু পরিবেশ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করুক।
বিজয় সুনিশ্চিত জানিয়ে তিনি বলেন, সকল প্রার্থী যত ভোট পাবে তার চাইতে আমি বেশি ভোট পাব কিন্ত ইভিএমে এমন ত্রুটি হলে ভোটের ব্যবধান কমবে।
উল্লেখ্য, দেশের তৃতীয় বৃহত্তম এই সিটিতে ২২৯ টি কেন্দ্রে হাজার ৩শ ৪৯ বুথে ইভিএমের মাধ্যমে ৪ লাখ ২৬ হাজার ৪৬৯ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নগর পিতা হতে মেয়র পদে লড়ছেন ৯ জন প্রার্থী ও ৩৩ টি ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর (মহিলা) পদে ৬৭ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১৭৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

Related Articles

Back to top button