sliderআন্তর্জাতিক সংবাদশিরোনাম

যে কারণে রাষ্ট্রীয় নাম পরিবর্তন করল তুরস্ক

রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের দেশ এখন থেকে টার্কি (Turkey) নয়, ‘তুর্কিয়ে’ (Türkiye) নামে পরিচিতি পাবে। তুরস্ক সরকারের পক্ষ থেকে জাতিসংঘে অনুরোধ জানানোর পর জাতিসংঘ তুরস্কের নাম পরিবর্তনে সম্মত হয়েছে। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, গত বছরের ডিসেম্বরে রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান এক ভাষণে বলেছিলেন, তুরস্কের সংস্কৃতি, সভ্যতা এবং মূল্যবোধ বেশি প্রতিনিধিত্ব হয় ‘তুর্কিয়ে’ শব্দ দিয়ে।
প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের এই ঘোষণার পরপরই দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম টিআরটি বিভিন্ন সময় নাম পরিবর্তনের যৌক্তিক কারণ ব্যাখ্যা করেছে। সংবাদমাধ্যমটি জানিয়েছে, তুরস্ককে ‘বিশ্বের সামনে নতুন করে পরিচিত’ করানোর পাশাপাশি নাম পরিবর্তন বেশ কয়েকটি কারণে জরুরি। এর মধ্যে, একটি হলো— পশ্চিমা বিশ্বে ক্রিসমাস, নববর্ষ এবং থ্যাংকসগিভিং উৎসবের সময় ঐতিহ্যগতভাবে টার্কি মুরগির মাংস খাওয়া হয়। সেই জায়গা থেকেও টার্কির নাম পরিবর্তন জরুরি।
টিআরটি আরও জানায়— ইংরেজি ভাষার ক্যামব্রিজ ডিকশনারিতে টার্কি বলতে ‘ব্যর্থ’ ‘নির্বোধ বা বেকুব ব্যক্তি’ কে নির্দেশ করা হয়। নতুন নাম পরিচিত করার ক্যাম্পেইনের আওতায় তুরস্কে উৎপাদিত সব পণ্যে এখন ‘মেড ইন তুর্কিয়ে’ লেখা থাকবে। দেশটির পর্যটন খাতে স্লোগান হিসেবে ব্যবহার করা হবে, ‘হ্যালো তুর্কিয়ে’। জাতিসংঘ জানিয়েছে, চলতি সপ্তাহে তুরস্কের কাছ থেকে অনুরোধ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তারা নাম পরিবর্তন করেছেন।
উল্লেখ্য, বিশ্বে দেশের নাম পরিবর্তন নতুন কোনো বিষয় নয়। ২০২০ নেদারল্যান্ডস নিজেদের হল্যান্ড নাম বদল করে। এর আগে, মেসিডোনিয়া নাম বদলে রাখে নর্থ (উত্তর) মেসিডোনিয়া, বতসোয়ানা নাম বদলে রাখে কিংডম অব ইসওয়াতিনি। তারও আগে, ইতিহাসে আজকের ইরান পরিচিত ছিল পারস্য নামে, থাইল্যান্ডের নাম ছিল শ্যাম এবং রোডেশিয়া নাম বদলে হয়েছে জিম্বাবুয়ে।
সূত্র : সিএনএন ও বিবিসি

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button