sliderস্থানীয়

মানিকগঞ্জের শিবালয় ও ঘিওর উপজেলায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দশ উদ্যোগ বিষয়ক কর্মশালা

সোহেল রানা, (মানিকগঞ্জ) : মানিকগঞ্জের শিবালয় ও ঘিওর এ দুই উপজেলায় আলাদা আলাদাভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দশ উদ্যোগ বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গভর্নেন্স ইনোভেশন ইউনিটের সার্বিক নির্দেশনায় বুধবার সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত উপজেলা পর্যায়ের সকল সরকারি প্রতিষ্ঠান, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় সুশীল সমাজ, চেম্বার অব কর্মাস অ্যান্ড ইন্ড্রাস্টিজ, প্রেসক্লাব, এনজিও, রাজনৈতক দল, সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন জনগোষ্ঠী, সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠীর সর্বোচ্চ ৫০ জন করে অংশগ্রহণকারীর সমন্বয়ে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলা প্রশাসনের আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) শুক্লা সরকার। শিবালয় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ জাহিদুর রহমান অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন। এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ইশতিয়াক আহমেদ, শিবালয় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা রেজাউর রহমান খান জানু ও ভাইস চেয়ারম্যান এ.কে.এম মিরাজ হোসেন (লালন ফকির) প্রমুখ।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা বাস্তবায়নে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। বর্তমান সরকারের প্রতিটি নির্বাচনী ইশতেহারেই দেশের সকল মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করাসহ দারিদ্র ও ক্ষুধা মুক্তি, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা ও সামাজিক নিরাপত্তার বিষয়কে অগ্রাধিকা প্রধান করা হয়েছে। এ লক্ষ্যকে সামনে রেখে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন সময়ে প্রয়োজনের নিরিখে বিশেষ বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন, যার মধ্যে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, ডিজিটাল বাংলাদেশ, শিক্ষা সহায়তা কর্মসূচী, নারীর ক্ষমতায়ন, সবার জন্য বিদ্যুৎ, কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশুর মানসিক বিকাশ, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচী, পরিবেশ সুরক্ষা ও বিনিয়োগ বৃদ্ধি অন্যতম যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দশ উদ্যোগ নামে পরিচিত। এসব উদ্যোগ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ভিশন ২০২১ অর্জনসহ দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে এবং বাংলাদেশকে ইতোমধ্যেই উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত করেছে। ভিশন ২০২১ এর অভিজ্ঞতার আলোকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ভিশন ২০৪১ ঘোষণা করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ সমূহের সঠিক এবং আরো কার্যকর বাস্তবায়ন ভিশন ২০৪১ অর্জনে এবং জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট ২০৩০ অর্জনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশা করা যায়। এক্ষেত্রে উগ্যোগ সমূহের নিয়মিত পরিবীক্ষণের পাশাপাশি বস্তবায়ন চ্যালেঞ্জে এবং নতুন সম্ভাবনা চিহ্নিত করা প্রয়োজন। বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জ এবং নতুন সম্ভাবনা চিহ্নিত করার ক্ষেত্রে স্থানীয় অংশীজনদের মতামত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অধিকন্তু, স্থানীয় পর্যায়ে উদ্যোগ সমূহের বহুল প্রচারের মাধ্যমে সাকারের গৃহীত কার্যক্রমকে জনসাধারণের মধ্যে পরিচিত করা আবশ্যক। এ লক্ষ্যে গভর্নেন্স ইনোভেশন ইউনিট স্থানীয় পর্যায়ে আয়োজনের কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। স্থানীয় পর্যায়ে বাস্তবায়ন চ্যালেঞ্জ এবং নতুন সম্ভাবনা চিহ্নিত করার পাশাপাশি উদ্যোগ সমূহের বহুল প্রচারে করণীয় নির্ধারণ বিষয়ে সুপারিশ প্রণয়ন কর্মশালার উদ্দেশ্য। কর্মশালার প্রাপ্ত ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে উদ্যোগ সমূহের অধিকতর উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ প্রণয়ন করাই এ কর্মশালার উদ্দেশ্য। এ কর্মশালায় দলগত কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারীদেরকে ৫টি গ্রুপে ভাগ করে প্রতি গ্রুপে ৮ থেকে ১০ জন করে অংশগ্রহণকারী দলগত কার্যক্রমে প্রতিটি গ্রুপ আলোচনার ভিত্তিতে উদ্যোগ সমূহের বাস্তবায়ন সমস্যা ও করণীয় সংক্রান্ত সুপারিশ প্রনয়ন করেন। এ কর্মশালায় চেয়ারম্যান, পল্লী সঞ্চয়ী ব্যাংক ও এনজিও, আনসার ও ভিডিবি, বিদ্যুৎ সমিতি, উপজেলা প্রকৌশলী ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী, স্বাস্থ্য বিভাগের ৫টি গ্রুপে ভাগ করে মোট ১০টি গোল টেবিলে মোট ৫০ জন অংশগ্রহণ করেন। এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ হামিদুর রহমানের সভাপতিত্বে ঘিওর উপজেলাতেও কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button