মহান মে দিবস : ‘শ্রমিক স্বার্থ রক্ষার আহ্বান’

বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের দিন হিসেবে স্বীকৃত মহান মে দিবস আগামীকাল ১ মে। তবে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকারি স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে গত বছরের মত এবছরও সব আনুষ্ঠানিকতা বাতিল করেছে শ্রম মন্ত্রণালয়।
তবে দেশের বামপন্থী শ্রমিক সংগঠনগুলো তোপখানা রোড, পল্টন ও প্রেসক্লাবের সামনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করবে বলে জানিয়েছে।
১৮৮৬ সালের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের শ্রমিকরা ৮ ঘণ্টা কাজের দাবিতে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। ওইদিন তাদের আত্মদানের মধ্যদিয়ে শ্রমিক শ্রেণির অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য তাদের আত্মত্যাগের এই দিনকে তখন থেকেই সারা বিশ্বে ‘মে দিবস’ হিসেবে পালন হয়ে আসছে।
দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দেবেন। এছাড়া কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হবে।
আজ শুক্রবার শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, মহান মে দিবস শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের চরম আত্মত্যাগে ন্যায্য অধিকার আদায়ের এক অবিস্মরণীয় দিন। তবে বিশ্বব্যাপী মহামারি করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ায় এ ভাইরাসের সংক্রমণরোধে সরকারি স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে এবছর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক কেন্দ্রের মূল অনুষ্ঠানসহ সব অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।
এদিকে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের পক্ষ থেকে মে দিবস উপলক্ষে সংক্ষিপ্ত কিছু সমাবেশ পালন করা হবে বলে জানিয়েছেন বাম গণতান্ত্রিক জোটের সমন্বয়ক বাসদ কেন্দ্রিয় কমিটির নেতা বজলুর রশীদ ফিরোজ।
তিনি বলে, করোনা মহামারির কারণে বাম দলগুলো তেমন অনুষ্ঠানপালন না করলেও বাম পন্থী শ্রমিক সংগঠনগুলো মে দিবসের শ্রমিকদের দাবি দাওয়া আদায়ে পল্টন-তোপখানা রোড ও প্রেসক্লঅবের সানে সমবেত হয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশের মাধ্যমে শ্রমিক বঞ্চনা, শ্রমিকদের নায্য দাবি আদয়ে শপথ নেবে। এবং আইএলও কনভেনশন অনুযায়ী দাবি আদায়ে শ্রমিকদের আন্দোলন সংগ্রাম জোরদার করার আহ্বান জানাবে। মে দিবস উপলক্ষে গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ জিস্কপ, শ্রমিক কর্মচারী ঐক্য পরিষদ- স্কপ, গার্মেন্টস টিউসি, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট, জাতীয় শ্রমিক ফ্রন্টসহ বিভিন্ন বামপন্থী শ্রমিক সংগঠনগুলো আলাদা আলাদা সমাবেশের মাধ্যমে দাবি আদায়ের শপথে সমাবেশ ও মিছিল করবে বলে জানিয়েছে।
মহান মে দিবসের বাঁশখালী, রানা প্লাজা ও তাজরীনসহ সকল শ্রমিক হত্যাকাণ্ডের বিচার করা এবং জাতীয় ন্যূনতম মজুরি বিশ হাজার টাকা ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র। আজ শুক্রবার মহান মে দিবসের প্রাক্কালে বাংলাদেশের ৪৫ লক্ষ গার্মেন্ট শ্রমিকের লড়াই সংগ্রামের সংগঠনটি দেশের সকল শ্রমজীবী-মেহনতি মানুষ ও সমাজের শ্রমিক দরদী জনতাকে বিপ্লবী অভিনন্দন জানিয়েছে।
গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র’র সভাপতি অ্যাড. মন্টু ঘোষ এবং সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার এক বিবৃতিতে এবারের মে দিবসকে শ্রমিকশ্রেণির মুক্তির সংগ্রামের দিবস হিসেবে ঘোষণা করেছেন। বিভিন্ন শ্রমিক ও বাম পন্থী দলের/সংগঠনের নেতারা দেশের শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের প্রতি জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ২০ হাজার টাকা ঘোষণা দাবি, শ্রমিকদের জীবনের নিরাপত্তার জন্য শ্রমিকের খাদ্য, জীবন, স্বাস্থ্য এবং চাকুরির নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, করোনা পরিস্থিতিতে কর্মরত শ্রমিকদের ঝুঁকিভাতা, বাঁশখালী, রানা প্লাজা ও তাজরিনসহ সকল শ্রমিক হত্যার বিচার, নিহত শ্রমিকদের আইএলও কনভেনশন অনুসারে ক্ষতিপূরণ, অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন অধিকার নিশ্চিত; সংবিধান ও আইএলও কনভেনশন অনুসারে শ্রম আইন সংশোধন, গার্মেন্ট শ্রমিকদের জীবন ধারণের উপযোগী মহার্ঘ ভাতা এবং শ্রমিকের রেশন, বাসস্থান, চিকিৎসার জন্য আসন্ন বাজেটে বরাদ্দের দাবি জানান।
বিবৃতিতে নেতারা বলেন, একের পর এক কালাকানুন এবং আইনের বিধিবিধান করার মাধ্যমে শ্রমিকদের অধিকার এবং সুযোগা-সুবিধা হরণ করা হচ্ছে। এখনো অধিকাংশ শ্রমিক মে দিবসের সবেতন ছুটি পায় না। শ্রম আইন অনুসারে সুযোগ সুবিধা, চাকুরি ও কর্মস্থলের নিরাপত্তা এবং অবাধে ট্রেড ইউনিয়ন করার অধিকার থেকে শ্রমিকরা বঞ্চিত। বেকারত্ব, দ্রব্যমূল্য, বাড়ি ভাড়া ও আবাসন সংকটে শ্রমিকরা বিপর্যস্ত। নারী শ্রমিকরা বৈষম্য ও যৌন হয়রানির শিকার। জাতীয় ন্যূনতম মজুরি ঘোষণার দাবি আজও উপেক্ষিত। এই অবস্থা থেকে মুক্তির জন্য ট্রেড ইউনিয়নগুলোকে দালালদের খপ্পর থেকে মুক্ত করে, শ্রেণি দৃষ্টিভঙ্গী সম্পন্ন স্বাধীন ও বিপ্লবী ধারায় আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানান নেতারা।
আগামীকাল গার্মেন্টস টিউসির পক্ষ থেকে সকাল ১০টায় পুরানা পল্টন মোড়ের সামনে মে দিবসের কেন্দ্রীয় সমাবেশ ও শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া মে দিবস উপলক্ষে উত্তরা, তেজগাঁও, কাঁচপুর, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, আশুলিয়া, নরসিংদী ও চট্টগ্রামসহ সকল গার্মেন্ট শিল্পাঞ্চলে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে শ্রমিক শ্রেণীর রাষ্ট্র ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা ছাড়া শ্রমিকদের অধিকার আদায় হবে না বলে মন্তব্য করেছেন করেছেন বাসদ নেতারা।
তারা বলেন, পুঁজিপতি বুর্জোয়া মালিকদের স্বার্থ রক্ষাকারী ফ্যাসিট আওয়ামী লীগের সরকারকে উঙ্খাত করে জনগণের রাষ্ট্র-সরকার-সংবিধান প্রতিষ্ঠা করা হলো মহান মে দিবসের আকাঙ্খার। এছাড়া দলীয় ব্যানারে বিভিন্ন বামপন্থী শ্রমিক সংগঠনগুলো জাতীয় প্রেসক্লাবসহ দেশের বিভিন্ন শহরে শ্রমিকদের দাবি আদায়, বঞ্চনা তেকে মুক্তির দাবিতে মহান মে দিবস পালন করবেন বলে জানিয়েছে।

Check Also

সাংবাদিকদের সাথে নবাগত ওসির মতবিনিময়

সিংগাইর(মানিকগঞ্জ)প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানায় সদ্য যোগদানকারী অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সফিকুল ইসলাম মোল্লা সিংগাইর প্রেসক্লাবের …