ব্যবসায় ক্যারিয়ার গড়তে শিক্ষার্থীদের জন্য ৫ পরামর্শ

সবাই যে চাকরি-বাকরির দিকে ছুটেন তা নয়, অনেকে স্বপ্ন দেখেন ব্যবসায় ক্যারিয়ার গড়ার। চাকরির প্রতিযোগিতামূলক বাজারে পিছিয়ে পড়েও অনেকে ব্যবসা শুরু করে থাকেন।
তরুণ প্রজন্মদের মধ্যে উদ্যোক্তা হওয়ার প্রবণতা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। নতুন নতুন ব্যবসা ও আইডিয়া নিয়ে চমকে দিচ্ছেন অনেকে।
তবে ব্যবসায় সফলতা পেতে চাইলে শিক্ষাজীবন থেকেই প্রস্তুতি থাকা দরকার। ব্যবসায় পড়াশোনা করে সার্টিফিকেট অর্জন করলেও এমন কিছু গুণ বা দক্ষতা নিজের ভেতরে থাকতে হবে, যাতে একটি ব্যবসা শুরু করার বা দায়িত্ব নিতে পারেন আপনি।
ব্যবসায় সফল ক্যারিয়ার ও উজ্জ্বল ভবিষ্যত গড়তে শিক্ষার্থীদের জন্য তিনটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ।
১. যোগাযোগের দক্ষতা
যোগাযোগ দক্ষতা ছাড়া ব্যবসায় কাঙ্খিত সফলতা পেতে আপনার জন্য কঠিনতর। বর্তমান অনলাইন দুনিয়ায় বহুমুখী যোগাযোগের প্রসার ঘটেছে। সেগুলোর সঙ্গে আপনার পরিচয় থাকাটা জরুরি। যে কোনো মানুষ বা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগে আপনাকে পরদর্শী হতে হবে। যোগাযোগের দক্ষতা একজন ব্যক্তির পারফর্মেন্স, আত্মবিশ্বাস বাড়ায় এবং তার আশে পাশের থাকা অন্যদেরও অনুপ্রেরণা যোগায়।
এখন কীভাবে আপনার যোগাযোগের দক্ষতা বাড়াবেন? শিক্ষাজীবনে বিভিন্ন সৃজনশীল কর্মকাণ্ডের সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করতে পারেন। ক্লাসে প্রেজেন্টেশনের কাজগুলো মনোযোগ দিয়ে করতে পারলে যোগাযোগে আপনার ভীতি কাটিয়ে উঠা সম্ভব।
২. দলের সঙ্গে কাজ করা
একটি ব্যবসা বা প্রতিষ্ঠান মানে হচ্ছে অনেক মানুষের সঙ্গে কাজ করা এবং তাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করা। ফলে দলের সঙ্গে কাজ করতে আপনাকে অভ্যস্ত ও আন্তরিক হতে হবে। এখন পড়াশোনার পাশাপাশি অন্যান্য কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকলে এদিকে আপনি এগিয়ে থাকবেন। আবৃত্তি, বিতর্ক সংঠন বা রক্তদান কর্মসূচি, বিনামূল্যে শিক্ষাদানের মতো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গেও নিজেকে যুক্ত করতে পারেন। দলবদ্ধ এসব কাজ গুরুত্ব দিয়েই করা উচিত। তাহলে একটি দলের হয়ে কাজ করা বা দলের দায়িত্ব পালন করার মধ্য দিয়ে নিজেকে ভবিষ্যত ক্যারিয়ারের জন্য প্রস্তুত করে নেয়া সহজ হয়ে যায়।
৩. খাপ খাইয়ে নেয়ার প্রবণতা
ব্যবসায় নামলে আপনাকে অনেক ধরনের বাধার সম্মুখীন হতে পারে। পড়তে হতে পারে নানা প্রতিকূল পরিস্থিতিতে। এমন মুহূর্তে সহনশীলতার সঙ্গে নিজেকে খাপ খাইয়ে নেয়ার চেষ্টা করতে হবে। অল্পতেই ভেঙে পড়লে চলবে না, এতে পিছিয়ে পড়তে পারেন আপনি। ব্যবসার সঙ্গে আর্থিক বিনিয়োগও জড়িত, ফলে ক্ষতির বিষয়টিও খেয়াল রাখতে হবে আপনাকে। যে কোনো পরিস্থিতি মোকাবিলা ও সমাধানে কৌশলী হতে হবে।
৪. সমস্যা সমাধানের চেষ্টা
যে কোনো প্রতিষ্ঠানে বা ব্যবসায় নানা সমস্যার মুখোমুখি হতে হবে আপনাকে এবং সেগুলো সমাধানও করতে হবে। সমস্যাকে যথাযথভাবে নিরূপণ করতে পারে এবং এর সঠিক সমাধান বের করতে পারাটাও বড় ধরনের যোগ্যতা। এদিকে আপনাকে এগিয়ে থাকতে হবে। যোগাযোগের দক্ষতা, দলবদ্ধ হয়ে কাজ করা-এসব বিষয় আপনাকে সহায়তা দেবে। আলোচনা-সমালোচনার মাধ্যেম কার্যকর সমাধান আপনাকে বের করে আনতেই হবে যেভাবেই হোক।
৫. নেতৃত্ব
একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালানো বা নেতৃত্ব দেয়া স্বাভাবিকভাবেই বেশ কঠিনতর কাজ। বহুমুখী যোগ্যতার মানুষ হতে হয় তাকে। একজন বিচক্ষণ, কৌশলী এবং পরিশ্রমী মানুষই পারেন একটি প্রতিষ্ঠানকে নেতৃত্ব দিতে। প্রতিষ্ঠানের প্রতি তাকে যথাযথ নিষ্ঠাবান ও দায়িত্বশীলও হতে হয়। শিক্ষাজীবনে নানা ধরনের সৃজনশীল, স্বেচ্ছাসেবী কর্মকাণ্ড, খেলাধুলাসহ নানা প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে এমন নেতৃত্ব অর্জন করা সম্ভব।

Check Also

বিল ও মেলিন্ডার সুবৃহৎ বাড়িতে কি কি আছে?

সপ্তাহজুড়ে সমগ্র বিশ্বেই সবথেকে বেশি আলোচিত ইস্যু ছিল বিল গেটস ও মেলিন্ডা গেটসের বিচ্ছেদ। প্রশ্ন …