sliderস্থানীয়

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় কটিয়াদীতে স্কুল ছাত্রীকে কুপিয়ে জখম

রতন ঘোষ, কটিয়াদী প্রতিনিধি: কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী উপজেলার চাঁন্দপুর ইউনিয়নের চারিয়া গ্রামে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় এক স্কুল ছাত্রীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেছে এক যুবক। এ ঘটনায় অভিযুক্ত যুবককে আটক করেছে কটিয়াদী মডেল থানা পুলিশ। আহত স্কুলছাত্রী বোয়ালিয়া তাহেরা নুর স্কুল এন্ড কলেজের দশম শ্রেণীর ছাত্রী এবং চাঁন্দপুর ইউনিয়নের প্রবাসী আয়াতুল্লাহর মেয়ে। অভিযুক্ত মনীর (২০), পার্শ্ববর্তী মুমুরদিয়া ইউনিয়নের কুড়িখাই গ্রামের নিদু মিয়ার ছেলে।

ঘটনার সূত্রে জানা যায়, মনিরের বাবা ও মেয়ের বাবা, মামাতো ফুফাতো ভাই, এই সূত্রেই মনীর,মেয়েকে বিয়ের উদ্দেশ্যে সব সময়ই মেয়ের বাড়িতে আসা-যাওয়া করতো। এবং মেয়েকে বিবাহের প্রস্তাব দিলে মেয়ে তাহা অগ্রাহ্যও করে। যার ফলে মেয়ে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে মনির তাকে উত্তক্ত করত এবং বিভিন্ন ধরনের খারাপ অঙ্গভঙ্গি প্রদর্শন করত। ৭ মে সন্ধ্যায় মনির সবার অগোচরে ধারালো অস্ত্র নিয়ে মেয়ের ঘরে আত্মগোপন করে থাকে। ভোররাতে ঘুমের মধ্যে মনির ধারালো অস্ত্র দিয়ে মেয়েকে এলোপাতাড়ি কুপাতে থাকে। সেই সময় মেয়ের চিৎকারে ঘরে থাকা মেয়ের মা ও ছোট ভাই ঘুম থেকে উঠে মনিরকে আটকানোর চেষ্টা করে, কিন্তু সে পালিয়ে যায়। পরে তার মা আহত মেয়েকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য দ্রুত ভাগলপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে এবং বর্তমানে সেখানেই চিকিৎসাধীন আছে। মেয়ের মা রুনা আক্তার জানান মনির প্রায় সময়ই আমার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া আসার পথে উত্ত্যক্ত করত এবং বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মনির এই কাজ করেছে। এ ব্যাপারে মেয়ের মা রুনা আক্তার কটিয়াদী মডেল থানায় মনিরের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেন এবং মনিরের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। বোয়ালিয়া তাহেরা নূর স্কুল এন্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ইন্দ্রজিৎ সাহা বলেন, সে একজন ভালো ও মেধাবী ছাত্রী ছিল। তার লেখাপড়ার প্রতি খুবই আগ্রহ ছিল। আমি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি।

কটিয়াদী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ দাউদ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন অভিযুক্ত মনিরকে আটক করা হয়েছে এবং আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button