sliderরাজনীতিশিরোনাম

ফ্যাসিবাদের ভয়াবহ পতনের পরিনতি থেকে রেহাই পাবেন না—এবি পার্টি

নিজস্ব প্রতিনিধি : আমার বাংলাদেশ (এবি) পার্টির নেতারা প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, পুলিশ, ছাত্রলীগ ও যুবলীগ দিয়ে দেশের মানুষকে অত্যাচার বন্ধ না করলে ফ্যাসিবাদের ভয়াবহ পতনের পরিনতি থেকে আপনি রেহাই পাবেন না। পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিজয়-৭১ চত্বরে অনুষ্ঠিত মানব বন্ধন থেকে এই হুশিয়ারী উচ্চারণ করা হয়।
অবৈধ সরকারের পদত্যাগের দাবিতে ঘোষিত লাগাতার কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বিকাল ৩ টায় “প্রহসনের নির্বাচন বর্জনের দাবিতে মানববন্ধন” করেছে আমার বাংলাদেশ (এবি ) পার্টি। পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিজয়-৭১ চত্বরে অনুষ্ঠিত মানব বন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির আহবায়ক আহবায়ক এএফএম সোলায়মান চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন যুগ্ম আহবায়ক প্রফেসর ডাঃ মেজর (অবঃ) আব্দুল ওহাব মিনার, যুগ্ম সদস্যসচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ, দফতর সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন রানা, প্রচার সম্পাদক আনোয়ার সাদাত টুটুল, মহানগর উত্তরের আহবায়ক আলতাফ হোসাইন প্রমুখ।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে এবি পার্টির আহবায়ক এএফএম সোলায়মান চৌধুরী বলেন, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সকল মহলের মতামত উপেক্ষা করে গণতন্ত্র হত্যার মাধ্যমে দ্বিতীয় বাকশাল কায়েম করতেই আওয়ামীলীগ প্রহসনের নির্বাচন করতে যাচ্ছে। ইতিহাসে এই নির্বাচন কালো অধ্যায় হিসেবে চিহ্নিত হয়ে থাকবে। তিনি বলেন ‘চোর চোর ভোট চোর, আওয়ামীলীগ ভোট চোর’- এই শ্লোগান এখন সবচেয়ে বেশী জনপ্রিয়।
মেজর (অব.) আব্দুল ওহাব মিনার বলেন, শিক্ষা স্বাস্থ্য ও রাজনৈতিক ব্যবস্থা সবই আজ ভেঙ্গে পড়েছে এই লুটেরা সরকারের কারণে। একজন ব্যাক্তির ক্ষমতা কুক্ষিগত করার লোভে গোটা জাতি দুর্ভিক্ষের হুমকিতে পড়েছে। তিনি জনতার উদ্দেশ্যে বলেন, আসুন সবাই মিলে অবৈধ সরকারের পদত্যাগ আন্দোলনে যুক্ত হই নইলে জাতি মুক্তি পাবেনা। তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, অবিলম্বে পদত্যাগ করুন, পুলিশ ছাত্রলীগ ও যুবলীগ দিয়ে দেশের মানুষকে অত্যাচার বন্ধ করুন। নইলে ফ্যাসিবাদের ভয়াবহ পতনের পরিনতি থেকে আপনি রেহাই পাবেন না।

ব্যারিস্টার ফুয়াদ বলেন, গত ২১ ডিসেম্বর যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর থেকে ৩৫৩ ধারার অধীনে দক্ষিন আমেরিকার চারটি দেশের: এল সালভাদরের ৩ জন, নিকারাগুয়ার ৪ জন, হুন্ডরাসের ৩ জন এবং গুয়াতেমালার ৪ জনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা ঘোষনা করেছে। যাঁদের সকলের বিরুদ্ধে মানবাধিকার লঙ্ঘন, অর্থ পাচার অথবা গনতন্ত্র ও সুষ্ঠু নির্বাচন পদ্ধতি ব্যাহত করবার অভিযোগ রয়েছে। গত কয়েকমাসে কম্বোডিয়া, জিম্বাবুয়ে এবং উগান্ডার বিরুদ্ধে দেয়া নিষেধাজ্ঞা পর্যালোচনা করলে এটা পরিষ্কার যে চলমান নির্বাচনী নাটকের পরে কোন কোন খাতের কারা কারা বিভিন্ন ধরনের নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে। পাশাপাশি রয়েছে আমাদের তৈরী পোশাক শিল্প। সব মিলিয়ে এই এক দলীয় সরকার দেশটাকে জাহান্নাম বানানোর সকল আয়োজন সমাপ্ত করেছে।
মানববন্ধনে আরো উপস্থিত ছিলেন এবি পার্টির সিনিয়র সহকারী সদস্য সচিব আব্দুল বাসেত মারজান, সহকারী সদস্য সচিব শাহ আব্দুর রহমান, এম আমজাদ খান, শাহাদাতুল্লাহ টুটুল, মাসুদ জমাদ্দার রানা, মহানগর দক্ষিণের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হালিম খোকন, যুগ্ম সদস্য সচিব সফিউল বাসার, কেফায়েত হোসেন তানভীর, সহকারী অর্থ সম্পাদক সুমাইয়া শারমিন ফারহানা, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সেলিম খান, আব্দুল হালিম নান্নু, আমিরুল ইসলাম নুর, এনামুল হক, আমানুল্লাহ খান রাসেল, রিপন মাহমুদ, ফেরদৌসী আক্তার অপি, শাহীনুর আকতার শীলা, আমেনা বেগম, রুনা হোসাইন, মশিউর রহমান মিলু সহ কেন্দ্রীয় ও মহানগরীর বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button