sliderস্থানীয়

নিয়ামতপুরে ভাগ্নির ছুরিকাঘাতে খালা-খালু গুরুতর আহত, থানায় অভিযোগ

নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধিঃ নওগাঁর নিয়ামতপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ভাগ্নির ছুরির আঘাতে খালা-খালু গুরুতর আহত। খালুর ভুড়ি বের হয়ে গেছে। আহতরা হলেন- সায়েফ উদ্দিন ৪৫), ও সায়েফ উদ্দিনের স্ত্রী শাহানারা (৪০)। সায়েফ উদ্দিনের মেয়ে শিরিনা খাতুন বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
থানায় লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ভাবিচা ইউনিয়নের কয়েশ গ্রামের বাহার উদ্দিন তার মেয়ে শাহানারাকে ১৯ শতক জমি লিখে দিয়ে যায়। সম্প্রতি ২৬ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ৮টার সময় সায়েফ উদ্দিন উক্ত জমি চাষের জন্য গেলে শাহানারার বোনের মেয়ে একই গ্রামের আসাদুল ইসলামের স্ত্রী হাসিনা ও মেয়ে হ্যাপি সায়েফ উদ্দিনের উপর আক্রমন করে। সে সময় হাসিনার হাতে থানা ছুরি সায়েফ উদ্দিনের পেটে ঢুকিয়ে দেয় এতে সায়েফ উািদ্দনের নাড়ী-ভুড়ি বের হয়ে হয়ে এবং শাহানারাকেও হত্যার উদ্দেশ্যে ছুরি দিয়ে আঘাত করলে সে নিজেকে কোন রকমে রক্ষার চেষ্টা করলে শাহানারার হাতে আঙ্গল কেটে যায়। এলাকাবাসীরা এগিয়ে এসে আহত সায়েফ উদ্দিন ও শাহানারাকে উদ্ধার করে নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা। নিয়ামতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক সায়েফ উদ্দিনের অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।
এ বিষয়ে বাদী শিরিনা বেগম বলেন, আমারা নানা ১৯শত জমি আমার মা শাহানারাকে লিখে দিয়ে যান। সে সময় আমার খালোত বোন হাসিনার মাকেও ৫ শত জমি লিখে দেন। সে সময় থেকে খালা ও খালাতো বোনেরা আমাদের সাথে বিবাদে জড়িয়ে পড়ে। সম্প্রতি মঙ্গলবার ২৬ জুলাই সকালে আমাদের জমিতে আমার বাবা চাষ করতে গেলে। আমার খালাতো বোন বাধা দেয় এবং আমার খালাতো বোন হাসিনার হাতে থাকা ছুরি আমার বাবার পেটে ঢুকিয়ে দেয়। এতে আমার বাবার নাড়ী-ভুড়ি বের হয়ে যায়। আমার মাও মারাত্মক আহত হয়।
এ বিষয়ে নিয়ামতপুর থানার অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Related Articles

Back to top button