sliderস্থানীয়

নাটোরে আ.লীগের সভায় এমপি ও উপজেলা চেয়ারম্যান সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা

নাটোর প্রতিনিধি : ২৯ জানুয়ারি রাজশাহীতে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় সমাবেশ উপলক্ষে নাটোর সদর ও পৌর আওয়ামী লীগের প্রস্তুতি সভায় সদর আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল এবং সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক শরিফুল ইসলাম রমজানের অনুসারীদের মাঝে বাকবিতন্ডা এবং ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে দুই পক্ষে হঠাৎ উত্তেজনা শুরু হলে পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

বুধবার(২৫ জানুয়ারি) দুপুরে এন এস সরকারি কলেজ মিলনায়তনে সভা চলাকালীন এ ঘটনা ঘটে।

বুধবারের প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত একাধিক আওয়ামী লীগের কর্মী জানান, সদর ও পৌর আওয়ামী লীগের প্রথম পরিচিতি ও ২৯ জানুয়ারির সমাবেশে যোগদানের প্রস্ততি উপলক্ষে সভা আহ্বান করেন সদর উপজেলা সভাপতি-স¤পাদক এবং পৌর সাধারন স¤পাদক হাবিবুর রহমান খান চুন্নু। এই সভায় যোগদান করেন এমপি শিমুল ও তাঁর অনুসারী হিসেবে পরিচিত নেতাকর্মীরা। সভা শুরুর পর দুপুরে নিজ অনুসারীদের নিয়ে সেখানে হাজির হন উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ স¤পাদক রমজান। এসময় রমজান পৌর সাধারন স¤পাদকের একক কর্তৃত্বে সভা আহ্বান ও কমিটির বাইরের নেতাকর্মীদের যোগদান নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এসময় মঞ্চ থেকে পাল্টা প্রতিবাদ শুরু হলে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল উত্তেজিত হয়ে সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রমজানের উপর চড়াও হয় । উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় শুরু হলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে । পরে সভা বয়কট করে চলে যান জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রমজান।

সংসদ সদস্যের সমর্থক বলে পরিচিত পৌর আওয়ামী লীগ সাধারন স¤পাদক চুন্নু বলেন, জেলা সাধারন স¤পাদক কমিটির সদস্যদের বাদ দিয়ে তার অনুসারীদের নাম অন্তর্ভুক্ত করেছেন৷ তার পকেট কমিটি দ্বারা মঙ্গলবার গনমিছিলের আয়োজন করেন ও নিজেও অংশ নেন জেলা স¤পাদক। অথচ পৌর স¤পাদক হিসেবে আমাকে অবহিত করা হয়নি। অনুমোদিত পৌর কমিটিতে নতুন করে কাউকে পদ দেয়ার কোন সুযোগ নেই। অথচ এমন অনৈতিক দাবীকে প্রতিষ্ঠিত করতে রমজান সদলবলে এসে সভা পন্ড করার চেষ্টা করেছেন।

জেলা আওয়ামী লীগ সাধারন স¤পাদক শরিফুল ইসলাম রমজান বলেন, আগামী ২৯ জানুয়ারী প্রধানমন্ত্রীর রাজশাহীর জনসভার কর্মসূচি সফল করার জন্য আমরা যখন কাজ করছি । ঠিক তখন সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল সংগঠনের গঠনতন্ত্র না মেনে অসাংগঠনিক এবং অনিয়মাতান্ত্রিক ভাবে তার লোকদের দিয়ে পৌর ও সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সভা আহবান করেছে । প্রকৃত ত্যাগি ও নিবেদিত নেতাকর্মীদের বাদ দিয়ে এবং পৌর কমিটির সভাপতিকে না জানিয়ে সাধারণ সম্পাদক একক কর্তৃত্বে সভা আহ্বান করেছে । যা তারা করতে পারেনা । এছাড়া সংসদ সদস্য জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদকের অনুমোদিত কমিটি মানেননা । তাই আমরা সভা বয়কট করেছি ।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুলের ফোনে একাধিকবার কল দেয়া হলেও সাড়া পাওয়া যায়নি ।
পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান জানান, সভা চলাকালে দুপক্ষের বাকবিতন্ডায় উত্তেজনা সৃষ্টি হলে অতিরিক্ত পুলিশ পাঠানো হয়। পরে শান্তিপূর্ণভাবে সভা সমাপ্ত হয় বলে জেনেছি।

Related Articles

Back to top button