sliderউপমহাদেশশিরোনাম

তাজমহলে নামাজ পড়া বন্ধ করতে চাইছে হিন্দুত্ববাদীরা

এ বার তাজমহলে নামাজ পড়ায় নিষেধাজ্ঞার দাবিতে সোচ্চার হলো ভারতের হিন্দুত্ববাদী সংগঠন আরএসএসের ইতিহাস শাখা। নামাজ পড়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি না-হলে তাজমহলে শিবের পূজা করতে দিতে হবে বলেও দাবি তুলেছে তারা।
রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের অখিল ভারতীয় ইতিহাস সংকলন সমিতির সচিব ড. বালমুকুন্দ পাণ্ডে শুক্রবার ইন্ডিয়া টুডেকে দেওয়া সাক্ষাত্‍কারে বলেছেন, ‘তাজ হল একটি জাতীয় ঐতিহ্য। কেন সেটিকে মুসলিমদের ধর্মীয় ক্ষেত্র হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি দেওয়া হবে? আগ্রার তাজমহলে নামাজ পাঠের অনুমোদন প্রত্যাহার করে নেওয়া উচিত।’
বিতর্ক আরও উসকে দিতে তিনি বলেছেন, তাজমহলে নামাজ পড়া হলে, শিবের পূজাও করতে দিতে হবে।
পাণ্ডের দাবি, ‘এমন অনেক প্রমাণ রয়েছে যে তাজমহল একটা শিবমন্দির ছিল। আর এটি তৈরি করেছিলেন এক হিন্দু রাজা। তাজ মোটেই ভালোবাসার প্রতীক নয়। সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রী মুমতাজ মহলের মৃত্যুর চার মাসের মধ্যেই ফের বিয়ে করেছিলেন। আমরা সমস্ত তথ্য-প্রমাণ জোগার করছি। খুব শিগগিরই সব জড়ো করতে পারব।’
দিনদুয়েক আগেই হিন্দু যুব বাহিনীর সমর্থকরা তাজের অন্দরে দাঁড়িয়ে শিব চালিসা পড়তে গেলে তাদের বাধা দিয়ে বের করে দেন নিরাপত্তারক্ষীরা। হিন্দু বাহিনীর সমর্থকদের দাবি ছিল, তাজ সমাধিক্ষেত্রে পরিণত হওয়ার আগে শিব মন্দিরই ছিল।
তাজমহল যে রাজ্যে অবস্থিত অর্থাৎ উত্তরপ্রদেশের সরকারি পর্যটন পুস্তিকা থেকে সেটির নাম বাদ পড়ার পর থেকেই তাজমহল বিতর্কের শুরু। এ নিয়ে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়ে বিজেপিশাসিত উত্তরপ্রদেশ সরকার। সেই বিতর্ক উস্কে এক বিজেপি নেতার তাজমহল সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর বয়ান আসে সংবাদমাধ্যমে। যার জেরে সমাজবাদী পার্টি নেতা আজম খানও পাল্টা মন্তব্য করেন তাজমহলসহ দেশের নানা সৌধ নিয়ে। এ বিতর্কের মাঝেই গতকাল বৃহস্পতিবার তাজমহল পরিদর্শনে যান রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী যোগি আদিত্যনাথ। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী অখিলেশের সস্ত্রীক তাজমহল পরিদর্শনের পর এটি আবারো কোনো মুখ্যমন্ত্রীর পরিদর্শন।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button