sliderঅপরাধশিরোনাম

চমেকে জোনায়েদ সাকির ওপর ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোর অগ্নিকাণ্ডে আহতদের দেখতে গিয়ে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে হামলার শিকার হয়েছেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকিসহ তার কয়েকজন রাজনৈতিক সহকর্মী।
মঙ্গলবার (৭ জুন) বিকেলে চমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় জোনায়েদ সাকির নাক দিয়ে রক্ত ঝরেছে। তিনি বাঁ হাতে আঘাত পেয়েছেন।
হামলার জন্য ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করেছেন গণসংহতির নেতারা।
হামলায় আহতরা হলেন- গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, রাষ্ট্র সংস্কারের ইমরান ইমু, গণঅধিকার পরিষদের সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খান, কেন্দ্রীয় যুগ্ম-আহ্বায়ক জসিম উদ্দিন, কার্যকারী সদস্য কামরুন নাহার ডলি, যুবঅধিকার পরিষদের বায়েজিদ থানার আহ্বায়ক ডা: রাসেল, মহানগর ছাত্র অধিকার পরিষদের নাহিন ইসলাম গাজী, চট্টগ্রাম গণসংহতির জেলা হাসান মারুফ রুমী, চট্টগ্রাম মহানগর ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক শ্রীধাম কুমার শীল প্রমুখ।
পরে জোনায়েদ সাকি সাংবাদিকদের বলেন, ‘সকালে আমরা সীতাকুণ্ড গিয়েছিলাম। এরপর চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রোগীদের দেখতে যাই। আমরা যখন গাড়িতে উঠি তখন তারা গাড়িতে হামলা করে। আমি গাড়িতে ছিলাম। ইট দিয়ে হামলা করেছে। নেতাকর্মীদের গাড়ি থেকে নামিয়ে তাদের ওপর হামলা করেছে। এতে আমাদের ২০ জন আহত হয়েছেন। আমাদের সাতটি রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীরা এ সময় হামলার শিকার হয়েছেন।’
সম্প্রতি বাম গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট থেকে বেরিয়ে সাত দল ও সংগঠনকে নিয়ে ‘গণতন্ত্র মোর্চা’ গঠনের ঘোষণা দিয়েছে গণসংহতি আন্দোলন। মঙ্গলবার দুপুরে ওই সাত দল ও সংগঠনের নেতারা চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণস্থল বিএম কনটেইনার ডিপো দেখতে যান। সেখান থেকে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে যান তারা।
এদিকে, হামলায় ছাত্রলীগের সংশ্লিষ্টতার কথা অস্বীকার করে চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রবিন হোসেন বলেন, ‘হামলা কারা করেছে আমরা জানি না। এর সাথে ছাত্রলীগের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।’
পাঁচলাইশ থানা ছাত্রলীগ নেতা রবিউল ইসলাম রাজু বলেন, ‘হাসপাতালে বিএম ডিপোতে দগ্ধদের দেখতে এসে তারা প্রধানমন্ত্রী এবং সরকারকে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করেন। তাদের উস্কানিমূলক বক্তব্য শুনে উপস্থিত সাধারণ মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। পরে ছাত্রলীগ এবং সাধারণ মানুষ তাদের ধাওয়া দেয়।
পাঁচলাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) সাদেকুর রহমান বলেন, চমেক হাসপাতলে জোনায়েদ সাকিকে কেন্দ্র করে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। তবে এতে কোনো সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button