sliderস্থানীয়

ঘিওরে সাবেক ইউপি সদস্যের বিষাক্ত বড়ি খেয়ে আত্মহত্যা

ঘিওর মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জের ঘিওরে বিষাক্ত বড়ি খেয়ে সাবেক মহিলা ইউপি সদস্য রোজিনা বেগম (৪০) আত্মহত্যা করেছেন। মঙ্গলবার ৩টার দিকে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার পয়লা ইউনিয়নের ছোট পয়লা গ্রামে। দুই সন্তানের জননী রোজিনা ওই গ্রামের মৃত ময়নাল হকের স্ত্রী।
পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, রোজিনা রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পরে। রাত আনুমানিক ২টার দিকে সে কীটনাশক বড়ি খেয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করে।
পরিবারের সদস্যরা টের পেয়ে মারাত্মক আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে ঘিওর হাসপাতালে এবং পরে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি রাত তিনটার দিকে মারা যান।
নিহতের শ্বাশুড়ি নাসিমা বেগম জানান, স্বামীহারা রোজিনা বেগম দুই সন্তান নিয়ে অনেক আর্থিক কষ্টে দিন কাটাচ্ছিলেন। বিভিন্ন এনজিওর টাকার চাপে রোজিনা সবসময় মন মরা হয়ে থাকতো।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক গ্রামবাসী বলেন, সিধুনগর গ্রামের জামাল নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে আট লাখ টাকা দাম নির্ধারণ করে অর্ধেক টাকা বাকিতে একটি ট্রাক গাড়ি কিনেন। কিছুদিন পর সেখানেও বাঁধে আরেক ঝামেলা।
সিধুনগরের মুন্নাফ খন্দকারের ছেলে মুস্তাক গাড়ির দলিল দেখিয়ে দাবি করেন এ ট্রাক গাড়িটি তিনি জামালের কাছ থেকে কিনে নিয়েছেন। এ বিষয়টি নিয়ে পয়লা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ একটা রায় দিয়েছিলেন। কিন্তু মুস্তাক খন্দকার সে রায় না মেনে কৌশলে রোজিনার কাছ থেকে গাড়ির চাবি নিয়ে এলাকা থেকে গাড়ি সরিয়ে ফেলেন। এসব নানাবিধ কারনে রোজিনা বিষাদগ্রস্থ হয়ে পরেন। মানসিক চাপে তিনি বিষ বড়ি খেয়ে আত্মহত্যা করতে পারেন।
ঘিওর থানার ওসি মোঃ আমিনুর রহমান জানান, লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে ঘিওর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার প্রকৃত কারন উদঘাটনে পুলিশ কাজ শুরু করেছে।

Related Articles

Back to top button