sliderস্থানীয়

কাঠালিয়ায় প্রবাসীর স্ত্রী একই দিনে ৪সন্তান জন্ম দিলেন

মো.শাহাদাত হোসেন মনু,ঝালকাঠি প্রতিনিধি : একইসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম দিলেন ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার গৃৃহবধূ মুক্তা আক্তার পুতুল। তার বয়স ২৪ বছর। জেলার কাঠালিয়া উপজেলার সোনাউটা গ্রামের প্রবাসী সিদ্দিকুর রহমানের স্ত্রী। স্বামী ুসুদ্দকুর রহমান থাকেন বাহরাইনে। বছরখানেক আগে ছুটি নিয়ে দেশে এসেছিলেন। ৩ মাস পূর্বে ছুটি শেষ
হওয়ায় আবার পাড়ি জমান বাহরাইনে।
শনিবার (০৭ অক্টোবর) রাত ২ টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একসঙ্গে চার সন্তানের জন্ম দিলেন প্রবাসী সিদ্দিকুর রহমানের স্ত্রী মুক্তা আক্তার পুতুল। ভ’মিণ্ট হওয়া চার সন্তানের মধ্যে তিন ছেলে ও এক মেয়ে । এতে সিদ্দিকুর এবং মুক্তা উভয়ের পরিবারে সবার মাঝে আনন্দের বন্যা বইছে। সেই সাথে এলাকা জুড়ে রয়েছে চাঞ্চল্যও। সকলে অপেক্ষায় আছে, হাসপাতাল থেকে
বাড়িতে এলে সবাই দেখবে এবং সুস্থ্যতার জন্য দোয়ার আয়োজন করবে।
চার নবজাতকের নাম রাখা হয়েছে- সায়েম, সালিম, আলিম ও আয়শা। তাদের মা মুক্তা আক্তার পুতুল সুস্থ থাকলেও নবজাতকদের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য নিউনেটাল ওয়ার্ডে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত¡াবধানে রাখা হয়েছে।
শেবাচিম হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. এম আর তালুকদার মুজিব জানিয়েছেন, চারটি বাচ্চার মধ্যে একটি খুব কম ওজন নিয়ে জন্ম নিয়েছে।
সেই বাচ্চাসহ সব শিশুকেই অবজারভেশনে রাখা হয়েছে। এমনিতে বাহ্যিকভাবে দেখে শিশুদের সবকিছু স্বাভাবিক ও ভালো মনে হচ্ছে।
তবে এখন পর্যন্ত কোনো শিশু শঙ্কামুক্ত বলা যাবেনা বলে জানিয়েছেন শেবাচিম হাসপাতালের সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) মনিরুজ্জামান শহিন। তিনি বলেন,সবকয়টি বাচ্চাই ওজনে কম রয়েছে। অর্থাৎ ভূমিষ্ঠ হওয়ার সময় স্বাভাবিক একটি শিশুর যে ওজন থাকার কথা, তা কারোরই নেই। তাই চারটি শিশুকেই হাসপাতালের নিউনেটাল ওয়ার্ডে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের তত্ত¡াবধানে রাখা হয়েছে। কখন কী হয় এখনই বলা যাচ্ছে না। অপরদিকে শিশুদের মা মুক্তা সুস্থ রয়েছেন বলে জানিয়েছেন হাসপাতালের এই পরিচালক।

চার সন্তানের জননী মুক্তা আক্তার পুতুলের মা মায়া বেগম বলেন,“একটা বাচ্চা কিংবা একলগে দুইটা বাচ্চা হওয়ার কথ াশুনছি। কিন্তু এখন তো চারটা সন্তান হইলো একলগে। ওগো লইগ্যা আর আমার মাইয়ার লইগ্যা দোআ করবেন যাতে ওরা ভালো ও সুস্থ থাকে। ”তিনি জানান, ১০ বছর আগে মেয়ে মুক্তার বিয়ে হয় সিদ্দিকুর রহমানের সঙ্গে। তাদের সংসারে ৬-৭ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে। এদিকে চার সন্তান ও স্ত্রীর খোঁজ নিতে বাহরাইন থেকে সিদ্দিকুর রহমান ফোন দিয়েছে জানিয়ে মুক্তার ভাই শান্ত বলেন, বর্তমানে আমার বোন হাসপাতালের ৫ তলার কেবিনে রয়েছেন আর বাচ্চাগুলো দোতলায় রয়েছে। উভয় জায়গাতে আমাদের স্বজনরা রয়েছেন।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button