sliderস্থানীয়

অনুমতি ছাড়া পলক দম্পতির ছবি ফেসবুকে প্রচার, আ’লীগ নেত্রীকে শোকজ

নাটোর প্রতিনিধি : নাটোরের সিংড়া আসনের সংসদ সদস্য ও আইসিটি প্রতিমন্ত্রী এড. জুনাইদ আহমেদ পলক এবং পলকপতœী সিংড়া পৌর আওয়ামী লীগের সদস্য আরিফা জেসমিন কনিকা’র ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করে ব্যানার তৈরি করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোষ্ট করেন সিংড়া পৌর মহিলা আ’লীগের নব-নির্বাচিত সভাপতি ও সিংড়া পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর জয়তুন বেগম এবং পৌরসভার উত্তর দমদমা সরদার পাড়ার আজাদের ছেলে ছাত্রলীগ কর্মী নাজমুল হক।
প্রতিমন্ত্রীর স্ত্রীর ছবি ব্যবহার করে ফেসবুকে প্রচারের জন্য ব্যানার পোস্ট করায় কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া হয়েছে মহিলা আ’লীগের নেত্রী জয়তুন বেগমকে।
সোমবার দুপুরে সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব জান্নাতুল ফেরদৌস তাঁর কাছে নোটিশটি পাঠায়।
জানা যায়, রবিবার (২৯ মে) রাত ১০ টা ৬ মিনিটে নাজমুল হক তার ফেসবুক আইডি থেকে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলকের ছবি ব্যবহার করে পলককে নাটোর সদর ও নলডাঙ্গা আসনের এমপি হিসেবে দেখতে চাই লিখে পোষ্ট করেন এবং একইদিনে রাত ১০ টা ২৭ মিনিটে পলকপতœী আরিফা জেসমিন কনিকা’র ছবি ব্যবহার করে নাটোর-৩ সিংড়া আসনের এমপি হিসেবে দেখতে চাই পোষ্ট করেন মহিলা আ’লীগের নেত্রী জয়তুন বেগম। ব্যানারের নিচে লেখা ‘প্রচারে: নাটোর-৩ সিংড়া আসনের জনগণ।’ কয়েক মিনিট পরে দুজনই ফেসবুক পোষ্ট মুছে দেন। এ ঘটনা সিংড়ায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে।
বিষয়টি সিংড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নজরে এলে সোমবার (৩০ মে) দুপুরে জয়তুন বেগমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জান্নাতুল ফেরদৌস দুপুরেই দলীয় প্যাডে জয়তুন বেগমকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠান। নোটিশে বলা হয়, এ প্রচারণা ব্যানার প্রকাশ পাওয়ায় সিংড়ায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মধ্যে বিভ্রান্তি ও সাংগঠনিক বিশৃঙ্খলা দেখা দিয়েছে, যা দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের সামিল। এ কারণে তাঁর বিরুদ্ধে কেন সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না, সে বিষয়ে তিন দিনের মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছে।
ছাত্রলীগ কর্মী নাজমুল হক পরবর্তীতে তাঁর ফেসবুক আইডিতে ক্ষমা চেয়ে একটি স্ট্যাটাস দেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, আমি ভূয়া আইডি থেকে নিয়ে ছবি পোষ্ট করেছি, সবাই ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন।
নোটিশের বিষয়ে মহিলা আ’লীগের নেত্রী ও পৌর কাউন্সিলর জয়তুন বেগম বলেন, ‘আমি নোটিশের জবাব দেবো, তবে এখন কিছু বলব না।’
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব জান্নাতুল ফেরদৌস বলেন, তিন দিনের মধ্যে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে। ব্যাখ্যা সন্তোষজনক না হলে তাঁর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Back to top button